You are here
Home > বাংলাদেশ > জেলার সংবাদ > আগুনে পুড়ে ছাই পাকশিমুলের চারটি পরিবারের সবকিছু

আগুনে পুড়ে ছাই পাকশিমুলের চারটি পরিবারের সবকিছু

Share

এম মনসুর আলী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি আগুনে পুড়ে সব ছাই হয়ে গেছে পাকশিমুল গ্রামের চারটি পরিবারের সব। কাঁথা, বালিশ,ধান,চাউল,কাপড়-ছোপর,আলনা -আলমারি,চেয়ার,টেবিল সব পুড়ে কয়লা হয় গেছে। খোলা আকাশের নীচে এখন তাদের বসবাস।

গত রোববার সরাইল উপজেলার পাকশিমুল গ্রামের বালুর চরের রুবিনা,লেকত আলী,কালা মিয়া,সায়রণ বেগমের ঘর আগুন লেগে ধূসর ছাই হয়ে গেছে।

কিছু রক্ষা পেয়েছে কি না, জিজ্ঞেস করতেই রুবিনা বলেন, ‘আমার কষ্টের সংসারের আর কিছুই নাই।’কিভাবে আগুন লেগেছে তাও জানি না। আমরা গরীব মানুষ। আমাদের কোন শত্রু নাই। হয়তো রান্না ঘর থেকে বা কারেন্টের তার থেকে আগুন লেগেছে।

রোববার সকাল ১১ টার দিকে এই চার পরিবারের সবাই কাজে চলে যায়। মানুষের মুখে বাড়িতে আগুন লাগার খরব পেয়ে দৌড়েদৌড়ি করে এসে দেখে আগুন যেন আকাশ ছোঁয়েছে। এর মধ্যে খবর পেয়ে সরাইল থেকে ফায়ার সার্ভিস এসে ১ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নেবায়।

গৃহকর্মীর কাজ করে সংসার চালান সায়রণ বিবি। ৫ছেলে ২ মেয়ে। খুব কষ্ট করে সংসার চালায়।
আগুন লাগার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে সায়রণ বিবি বলেন, আগুন কিভাবে লাগছে আমরা জানিনা।
আগুন নেভার পর ফিরে এসে পোড়া টিন ছাড়া কিছুই পাননি।

আবুল মিয়া বলেন, ‘বহুত কষ্টে ঘরের জিনিসপত্র জুরায়ছি। আমার সব ছাই হইয়া গেছে। সকালে রুজির আশায় বাহির হইছলাম। ফিরা আর কিছু পাই নাই।’ আগুন কিভাবে লাগছে জানতে চাইলে আবুল মিয়া বলেন, কিভাবে লাগছে আমরা কিছুই জানি না। মনে হয় রান্না ঘর থেকে লাগছে।

মঙ্গলবার পুড়ে যাওয়া ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাসিন্দাদের প্রায় সবাই দিনমজুর, দিন আনে দিন খায়। আগুন যখন লাগে, তখন বাসিন্দাদের বেশির ভাগ নিজেদের কাজে বাইরে ছিলেন।

পাকশিমুল ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার মোতালেব মিয়া বলেন, আগুনে এই অসহায় পরিবারগুলো পুড়ে সব ছাই হয়ে গেছে। এক প্রশ্নের জবাবে মেম্বার বলেন, এরা গরিব মানুষ। এদের কোন শত্রু নাই। এদের ক্ষতি করার লোক গ্রামে নাই।
হয়তো রান্না ঘর হইতে আগুন লাগতে পারে।

Leave a Reply

Top