You are here
Home > বাংলাদেশ > জেলার সংবাদ > লক্ষ্মীপুরে স্বাস্থ্যবিধি তোয়াক্কা না করে বিকাশ কাস্টমার সার্ভিসে গ্রাহকদের ভীড়!

লক্ষ্মীপুরে স্বাস্থ্যবিধি তোয়াক্কা না করে বিকাশ কাস্টমার সার্ভিসে গ্রাহকদের ভীড়!

Share

সারা বিশ্বে মহামারী করোনার ২য় ডেউ চলছে,এতে বাংলাদেশে সরকার লকডাউনসহ গণপরিবহন বন্ধ রাখার প্রজ্ঞাপন জারি করেন। এতে উল্লেখ্য করা হয় ব্যাংককিং খাতসহ সর্বত্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সবাইকে চলার তাগিদ দেওয়া হয়।

এদিকে লক্ষ্মীপুরে মোবাইল ব্যাংককিং প্রতিষ্ঠান বিকাশ গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে সামাজিক দ্রুরত্ব বজায় না মেনে গ্রাহকদের উপচেপড়া ভীড় দেখা দেয়।
বিকাশ একাউন্টে নানা রকম সমস্যা থাকায় সবাই কেন্দ্রে গিয়ে সমাধানের চেষ্টা করছে।।

গ্রাহকদের কাছ থেকে জানা যায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী করোনাকালীন ঈদ উপহার গ্রহনের টাকা বিকাশে প্রদান করছে,এতে অনেকেই টাকা উত্তোলনের সময় সমস্যায় পড়ছেন।এছাড়াও সরকার স্কুল-কলেজের উপবৃত্তির টাকা বিকাশের মাধ্যমে প্রদান করছে। গ্রাহকদের অনেকেই নিজেদের পিন নাস্বার ভুলে গেছেন বা হ্যাকারদের হাতে পড়ায় নিজ একাউন্ট ব্লক হওয়াসক নানা রকম বিড়ম্বনায় পড়ছেন।

সকাল ৮টা থেকে এমন দীর্ঘলাইন সারি দেখা দেয় যায়।বিকাশ কাস্টমার প্রতিনিধিদের কাছ থেকে জানা যায় পুরো লক্ষ্মীপুর জেলায় সার্ভিস সেন্টার মাত্র একটি হওয়ায় সব উপজেলা থেকে গ্রাহকগণ সদরে এসে ভীড় করছে। এদিকে এতো পরিমাণ গ্রাহক হওয়ায় তারাও সার্ভিস দিতে হিমশিম খাচ্ছে। গ্রাহক শ্রেণির সার্ভিস প্রদানে তাদের লোকবল হাতেগনা কয়েকজন হওয়ায় এ সমস্যা পোহাতে হয়

বিশেষত বর্তমানে সরকার ডিজিটাল মোবাইল ব্যাংককিং কার্যক্রমে সর্বাত্বক ভূমিকা পালন করছে।এতে ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানে কাউকে লাইনে ধরে সেবা নিতে যেন না হয় তাই এমন সার্ভিস প্রদানে সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে আহবান করছেন।উল্লেখ্য বর্তমানে সরকারী ত্রাণ,অনুদান,স্কুল -কলজের অনুদান,বিভিন্ন ভাতা প্রদানে এ মাধ্যম ব্যবহার করা হচ্ছে।
রবিবার(২ মে) সকাল থেকে এমন দীর্ঘ সারি লক্ষ করা যায়। জানা যায় সপ্তাহে শুক্রবার এবং শনিবার ছাড়া বাকি দিনগুলোতে এমন ভীড় হয়।
এতে সামাজিক দূরত্ব না থাকায় সবার মনে ভয়ভীতি কাজ করছে।এভাবে সবার একত্রে জড় হওয়ায় মহামারী পরিস্থিতি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ার আশংকা করা যাচ্ছে।
বিশেষ করে সেবা গ্রহনের জন্য আঞ্চলিক ও চরাঞ্চরের মানুষজন ভোগান্তিতে পড়ছে।

Leave a Reply

Top