You are here
Home > বাংলাদেশ > জেলার সংবাদ > কুমারখালীতে অবৈধ ও ভেজাল পশুখাদ্য কারখানার সন্ধান

কুমারখালীতে অবৈধ ও ভেজাল পশুখাদ্য কারখানার সন্ধান

Share

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে রেজিস্ট্রেশনবিহীন অবৈধ ও ভেজাল পশুখাদ্য তৈরি কারখানার সন্ধান পাওয়া গেছে। কারখানাটির নাম সুমাইয়া ট্রেডার্স। এটি কুষ্টিয়া – রাজবাড়ি আঞ্চলিক মহাসড়কস্থ চাপড়া ইউনিয়নের। দবির মোল্লা রেলগেটের নিকস্থ। ছেঁউরিয়া মোল্লা পাড়ায় অবস্থিত।

কারখানায় অবৈধভাবে ফ্রেস, তীর, সজীব সহ দেশের খ্যাতিমান ব্র্যান্ডের নাম, ঠিকানা, সিলসহ বিএসটিআই এর লগো ব্যবহার করে নিম্নমানের গমের ভূষি ও স্যাঁতস্যাঁতে ডাল ব্যবহার করে পশুখাদ্য তৈরি করে জেলাসহ বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা হয়। এদিকে খবর পেয়ে শনিবার (১০ এপ্রিল) দুপুরে কারখানাটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে প্রশাসন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রেজিস্ট্রেশন বিহীন সুমাইয়া ট্রেডার্সের নামে কারখানা খুলে দেশের খ্যাতনামা ফ্রেস, তীর ও সজীব ট্রেডার্সের নাম ঠিকানা ব্যবহার করে নিম্নমানের স্যাঁতস্যাঁতে উপাদান দিয়ে পশুখাদ্য তৈরি করা হচ্ছে।

এবিষয়ে কারখানার শ্রমিক রাসেল হোসেন বলেন, এখানে ভাল পশুখাদ্য কিনে এনে মিশিত করা হয়। পরে বাজার থেকে কেনা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বাস্তায় বাজারজাতকরণ করা হয়। তিনি আরো বলেন, সবাই এভাবেই করে, আমরা করলে দোষ কোথায়! কারখানার মালিক জামিরুল ইসলাম মুসা বলেন, এখানে কোন অনিয়ম হচ্ছে না। পশুখাদ্য আবার কত ভাল হয়।

এবিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসার ডাঃ মোঃ নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, রেজিস্ট্রেশন বিহীন সুমাইয়া ট্রেডার্সে অবৈধভাবে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের লগো ব্যবহার করে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে পশু খাদ্য তৈরি করা হচ্ছে, যা সম্পূর্ণ আইনবিরোধী ও ভোক্তা অধিকার আইন লঙ্ঘন করে। তিনি আরো বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে অবৈধ কারখানাটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান বলেন, সরকারিকাজে ব্যস্ত থাকায় ঘটনাস্থলে প্রাণী সম্পদ অফিসারকে পাঠিয়ে কারখানাটি বন্ধ করা হয়েছে। পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Top