You are here
Home > বাংলাদেশ > জেলার সংবাদ > কুষ্টিয়া প্রবাসীর বসতবাড়ি জোরপূর্বক গুড়িয়ে দিলেন ক্ষমতাসীন দলের ভূমিদস্যু আনোয়ার

কুষ্টিয়া প্রবাসীর বসতবাড়ি জোরপূর্বক গুড়িয়ে দিলেন ক্ষমতাসীন দলের ভূমিদস্যু আনোয়ার

Share

কে এম শাহীন রেজা কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বটতৈল ইউনিয়নের কবুরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাশে বসবাসরত সৌদি প্রবাসী বিল্লাল হোসেনের বাড়ি গুঁড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালী মিল মালিক ও ভূমিদস্যু আনোয়ার হোসেন। সৌদি প্রবাসী বিল্লাল হোসেনের বসতবাড়ির আঙিনায় থাকা প্রায় ৫০ টি ফলজ ও বনজ গাছ কেটে নিয়ে গেছে ওই প্রভাবশালীর ক্যাডার বাহিনী। জানা গেছে তিনি ক্ষমতাসীন দলের একজন তার কর্মই হলো জোরপূর্বক অন্যের জমি ও সরকারি জমি দখল করে দোকানপাট নির্মাণ করা।

রবিবার (২৮ মার্চ ২০২১) সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির চারপাশে বালু দিয়ে উঁচু করা হয়েছে এবং বাড়ি ভেঙে ফেলা হয়েছে। সেখান কোন আসবাবপত্র নেই। বাড়ির মিটার খুলে গাছের সাথে বেঁধে রাখা হয়েছে।

সৌদি প্রবাসী বিল্লাল হোসেন জানান, আমি দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে ৩২ শতাংশ জমি বায়না রেজিস্ট্রি করে বসবাস করে আসছি। দীর্ঘদিন ধরে এই জমিতে বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করি। বাড়ির আঙিনায় প্রায় ৫০টি ফলজ ও বনজ গাছ লাগিয়েছিলাম সেই গাছও কেটে নিয়েছে।

আমি এই দখলের কথা শুনে সৌদি থেকে দেশে ফিরে আসি। এর আগে আমার বাড়ির সব আসবাবপত্র নিয়ে গেছে। গত (রবিবার) সকালে আমার বাড়ি এখন ভেঙে দিচ্ছে আনোয়ার হোসেন ও তার ক্যাডার বাহিনী। আমি এখন কোথায় যাবো। আমার লাঠির জোর নেই, তাই আমার চোখের সামনে ওরা আমার বসতবাড়ির সব কিছু তছনছ করে নিয়ে যাচ্ছে আর আমি অসহায়ের মত দেখছি। আমি এর বিচার চাই।

স্থানীয়রা জানান, সকালে আনোয়ার তার লোকজন নিয়ে ওই বাড়িতে আসে। এ সময় সে নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তার ক্যাডার বাহিনী দিয়ে তছনছ করায় এবং ঘরে থাকা আসবাবপত্রসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। পরে একটি ঘরের টিনের চালা নিয়ে যায়। খবর পেয়ে বাড়ির মালিক প্রবাসী বিল্লাল হোসেন এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে সেখানে হাজির হলে আনোয়ার হোসেন সরে যায়।

জানা গেছে, আনোয়ার বেপরোয়াভাবে চলাচল করেন এবং সরকারী জায়গা দখন করে অফিস, দোকান ঘর নির্মানসহ ইতি পূর্বেও তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ থাকলেও ক্ষমতাসীন দলের হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ কোথাও অভিযোগ দিতে সাহস পাইনা না।

এবিষয়ে আনোয়ার হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমি আমার জায়গা দখলমুক্ত করছি। আপনি কোন বসতবাড়ি উচ্ছেদ করতে পারেন কিনা জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

এবিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন।কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাধন কুমার বিশ্বাসের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি দেখছেন এবং তাৎক্ষণিক বটতৈল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ মোমিন মন্ডলকে অবগত করেছেন বলে জানান।

Leave a Reply

Top