You are here
Home > বাংলাদেশ > জেলার সংবাদ > কুষ্টিয়া ‘বন্ধু’ সংগঠনের মহতি উদ্যোগে কুমারখালীর নুরজাহান ফিরে পেলো তার নতুন জীবন

কুষ্টিয়া ‘বন্ধু’ সংগঠনের মহতি উদ্যোগে কুমারখালীর নুরজাহান ফিরে পেলো তার নতুন জীবন

Share

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি।।

জয় হোক মানবতার, জয় হোক “বন্ধু” সংগঠনের,” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে এগিয়ে চলেছে বন্ধু সংগঠন। গতকাল ২৩ শে মার্চ দিনটি বন্ধু সংগঠন এর জন্য যেমন আনন্দের ছিল, তেমনই ছিল বেদনাদায়ক। আনন্দ এই জন্য যে, কুষ্টিয়ার কুমারখালীর নুরজাহান বেগম আজ হাসপাতালের বিছানা ছেড়ে বাড়ি ফিরেছেন, অন্যদিকে আমাদের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি মিজানুর রহমান কলিনের বড় ভাইকে শেষ বিদায় জানাতে হয়েছে! তবুও জীবন থেমে নেই। সংগঠনের পক্ষ থেকে তার বিদায়ী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়।

গত পাঁচ-ছয় মাস আগে এই বন্ধু সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে মানবতার সেবায় নিয়োজিত থেকে নানা বিধ সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ড করে চলে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার বন্ধু সংগঠন এগিয়ে আসলো এক অসহায় হতদরিদ্র ভদ্রমহিলার চিকিৎসাসেবায় জন্য।

অসহায় ভদ্রমহিলার বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার এলঙ্গী পাড়ার সিরাজ সরদারের কন্যা মোসা: নুরজাহান (৫০)। তিনি সম্প্রতি অ্যাক্সিডেন্টে কোমরের হাড় ভেঙে অত্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় দিনাতিপাত করছিলেন। কুষ্টিয়ার আঞ্চলিক প্রতিনিধি কলিন , টনাসহ আরোও অনেকে খোঁজ পেয়ে ছুটে যায় তার বাড়িতে। পঞ্চাশোর্ধ এ মহিলাকে বন্ধু সংগঠন চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য তাকে নিয়ে এসে কুষ্টিয়া ডক্টরস ল্যাব এর ভর্তি করেন আজ থেকে পনের দিন আগে। কর্তব্যরত ডাক্তার মুসাদ্দেক রেজা রিপন তার
অবস্থার আরও অবনতি হওয়াতে অতি দ্রুত তাকে অপারেশন করার পরামর্শ দেন।

হতদরিদ্র এই মহিলার পক্ষে অত্যন্ত ব্যয়বহুল চিকিৎসা করানো সম্ভব না থাকায় “বন্ধু” সংগঠন তার চিকিৎসা সেবা দেবার দায়িত্ব নিয়ে ডক্টরস ল্যাব ক্লিনিকে অপারেশনের ব্যবস্থা করেছিল। বন্ধু সংগঠনের অর্থায়নে ডক্টর মোসাদ্দেক রেজা রিপন তার অপারেশন করে এবং তা সাকসেসফুল হয়েছেন ডাক্তার রিপন।

গত ১৫ দিন ডক্টরস ল্যাব চিকিৎসা নেওয়ার পর গতকাল বিকেলে নুরজাহান তার নিজ বাড়িতে ফিরে যান। কুষ্টিয়া প্রতিনিধির কয়েকজন বন্ধুর অক্লান্ত পরিশ্রমে নুরজাহান বেগম আজ নতুন জীবনের স্বপ্ন দেখছেন। সবার প্রত্যাশা আগের মতোই তিনি হাঁটতে পারবেন, নিজের কাজকর্ম করতে পারবেন এবং তিনি স্বাভাবিক জীবন ফিরে যাবেন।

বন্ধু সংগঠন এর এমন মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার একাধিক সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। সেই সাথে কুষ্টিয়ার ডাক্তাররাও বন্ধু সংগঠন এর উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করেছেন। তারা বলেছেন, বন্ধু সংগঠনটি অচিরেই অনেক দূর এগিয়ে যাবে কারণ তারা যে মহৎ কাজে লিপ্ত রয়েছেন তা কল্পনাতীত। এই অপারেশনটি ছিল প্রচন্ড ব্যয়বহুল একটি অপারেশন যা বন্ধু সংগঠন একাই তা বহন করেছে এর জন্য আমরা বন্ধু সংগঠন কে স্যালুট জানাই। জয় হোক মানবতার, জয় হোক ‘বন্ধু’ সংগঠন ও বন্ধু পরিবারের সবাইকে।

Leave a Reply

Top