You are here
Home > সোশ্যাল মিডিয়া > ভাইরাল ইস্যু > ডোপ টেস্ট সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

ডোপ টেস্ট সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

Share

ডোপ টেস্ট বা ড্রাগ টেস্ট কী?

মাদক বা এলকোহলসহ বেশকিছু নেশা জাতীয় দ্রব্য আছে যা গ্রহণ করার পরও এর রেশ শরীরে থেকে যায়। আর এগুলোই ডোপ টেস্টের মাধ্যেমে শনাক্ত করা হয়।

কিভাবে এই টেস্টটি করা হয়?

এক্ষেত্রে সাধারণত অভিযুক্তদের মুত্র বা রক্ত, আবার কখনো দুটিরই নমুনা পরীক্ষা করা হয়। ‘ডোপ টেস্ট’ এ মাদক গ্রহণ করার শেষ ১ সপ্তাহ মূখের লালার মাধ্যমে, শেষ ২ মাস রক্তের মাধ্যমে, শেষ ১২ মাস বা ১ বছর চুল পরীক্ষার মাধ্যমে মাদক শনাক্ত হবে । এছাড়াও, ডোপ টেস্টে স্প্যাইনাল ফ্লুইড পরীক্ষার মাধ্যমে গত পাঁচ বছরের মধ্যে যদি কেউ মাদক গ্রহণ করে তবে পরীক্ষায় ধরা পড়বে। বর্তমানে মূত্র পরীক্ষার মাধ্যমে ‘ডোপ টেস্ট’ করা হচ্ছে এবং এই পরীক্ষার মাধ্যমে কোনো ব্যক্তি শেষ ১০ দিনে কোনো মাদক গ্রহণ করেছেন কি না তা জনা যাবে ।

‘ডোপ টেস্ট’ করাতে কতো টাকা লাগে?

ডোপ টেস্টের অন্তর্ভুক্ত নন-স্পেসিফিক ও অ্যালকোহল টেস্টের ফি মোট ৯০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। নন-স্পেসিফিক পরীক্ষার মধ্যে বেঞ্জোডায়াজেপিন, এমফেটামাইনস, অপিয়েটস ও কেননাবিনেয়েডস— এই চারটির প্রতিটির ফি ১৫০ টাকা এবং অ্যালকোহল পরীক্ষার ফি ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বিঃদ্রঃ টাকা কম-বেশি হতে পারে।

Top