You are here
Home > বাংলাদেশ > ঝর্ণার পানিতে ডুবে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ঝর্ণার পানিতে ডুবে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

Share

ঝর্ণার পানিতে ডুবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অপু চন্দ্র দাস নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। অপু বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগ ২০১৯-২০ বর্ষের শিক্ষার্থী। সে লক্ষ্মীপুর জেলার সদর উপজেলার ভাঙ্গাখা গ্রামের বাসিন্দা। তার পিতার নাম দেবব্রত চন্দ্র দাস। একই ঘটনায় খাগড়াছড়ি জেলা সদরের দুলাল দেব নাথের ছেলে প্রিতম দেব নাথও মারা যান। অপু ও প্রিতম দুজনেই বন্ধু ছিলেন।

বৃহষ্পতিবার দুপুর ১টার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলার পর্যটনকেন্দ্র রিছাং ঝরনার ওপরের গভীর পানির কূপে পড়ে এই ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুপুরে দিকে খাগড়াছড়ি থেকে দুই বন্ধু রিছাং ঝরনা ঘুরতে আসে। ঘুরতে এসে পা পিছলে গভীর পানির কূপে পড়ে যায়। কূপের পাশে শুষ্ক জায়গায় তাদের মোবাইল, মানিব্যাগ, জুতা ও ব্যাগ পড়ে ছিলো। পুলিশ দুপুর আড়াইটার দিকে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করে মাটিরাঙ্গা থানায় নিয়ে আসে।

মাটিরাঙ্গা থানার ওসি মুহাম্মদ আলী ইত্তেফাককে বলেন, আমরা দেড়টার দিকে খবর পেয়ে আড়াইটার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছাই। লাশ উদ্ধার করে কন্ডিশন দেখে মনে হয়েছে দুজনের কেউই সাঁতার জানতো না। ঘটনাস্থলেই দুজনের মৃত্যু হয় বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলের আশপাশেও অপরাধমূলক কোনো লক্ষণ চোখে পড়েনি। মরদেহ দুটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে এখন মাটিরাঙা থানায় রাখা হয়েছে। পরিবারের লোকজন থানায় আসতেছে। পরবর্তীতে আইনানুগভাবেই আমরা সব ব্যবস্থা নেবো।

বিভাগে চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. লিয়াকত হোসেন মাহমুদ বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। বিভাগের এক মেধাবী শিক্ষার্থীর অকাল মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। আমরা বিভাগের পক্ষ থেকে তার খোঁজখবর নিচ্ছি। পরবর্তীতে একাডেমিক মিটিংয়ে আলোচনা করে করনীয় কিছু থাকলে করবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, ঘটনা জানার পরই মাটিরাঙ্গা ও লক্ষ্মীপুর থানার ওসির সাথে বলেছি। ওই শিক্ষার্থীর মা অসুস্থ। আমরা তার পরিবারের সাথেও যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য এক শিক্ষার্থী সেখানে আছে। যে কোন সাহায্য লাগলে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমরা করবো।

Top