প্রস্তুত হচ্ছে জাতীয় স্মৃতিসৌধ

সাদ্দাম হোসেন, সাভার প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:19 PM, 13 December 2020

Share

সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ ধুয়ে মুছে রং তুলির আচরে প্রস্তুত করা হচ্ছে। আগামী ১৬ ডিসেম্বর ৪৯ তম বিজয় দিবস উপলক্ষে বাঙালী জাতি

শ্রদ্ধা ভরে স্বরণ করবে সকল বীর শহীদদের।

বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারণে এবছর ২৬ মার্চে স্মৃতিসৌধ শ্রদ্ধা জানাতে পারেনি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ কেউই। এবছর রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গনে না আসলে তাদের পক্ষ থেকে প্রতিনিধিরা শ্রদ্ধা জানাবেন বলে জানিয়েছে গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তারা।

করোনার প্রভাব একটু কমে আসায় সাধারণ মানুষের জন্য সীমিত আকারে খোলা থাকবে বীর শহিদদের রক্তে গাথা এই স্মৃতি স্থম্ব। ভিআইপিরা শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে চলে যাওয়ার পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২০০ জনরে গ্রুপ করে স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পমাল্য নিবেদনের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে সাধারণ জণগন৷

রোববার (১৩ ডিসেম্বর) সকালে সাভারের নবীনগরে অবস্থিত জাতীয় স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গনের গিয়ে গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের দম ফেলানো ফুরসত নেই এমন কর্মযজ্ঞ চলতে দেখা গেছে।

আরও দেখা গেছে, স্মৃতিসৌধের প্রধান ফটক ও দ্বিতীয় ফটকের সামনে সড়কের ডিভাইডারের রং করা হচ্ছে। ফটকগুলোর ভেতরে জীবাণু নাশক স্প্রে ব্যবহার করতে বড় করে মেশিন স্থানপন করা হয়েছে। স্মৃতিসৌধের ভেতরে ঢুকতেই চোখে পরেছে ভিভিন্ন রংয়ের আলোকসজ্জার বাতি, গাছের নতুন টপ। আর পাইপের পানি দিয়ে পরিষ্কার করা হচ্ছে এই প্রাঙ্গনের পুরো জায়গা। এক কথায় বলা চলে বাঙ্গালী জাতির শ্রদ্ধা পেতে প্রস্তুত হচ্ছে জাতীয় স্মৃতিসৌধ।

ধোয়া মোছার কাজ করছেন কামাল হোসেনসহ আর তিন- চারজন। কামাল হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, পুরো স্মৃতিসৌধ এলাকা ধুয়ে মুছে পরিষ্কার পরিছন্ন করা হচ্ছে। সেই সাথে আলোকসজ্জা লাগানোর কাজ চলছে। আগামী দুই দিনের মধ্যে কাজ শেষ হবে।

১৫ বছর ধরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে রং দেওয়ার কাজ করেন আব্দুল জলিল। তিনি বলেন, প্রতি বছর ১৬ই ডিসেম্বর ও ২৬ শে মার্চ আমরা রংয়ের কাজ করে থাকি। এছাড়া বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমরা কাজ করে থাকি। আমি পরিবার নিয়ে এখানেই থাকি।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (এসআই) হারুনুর রশিদ বলেন, জাতীয় স্মৃতি সৌধে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা করার জন্য। সকাল বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহ করছি। আগামী দুই-এক দিনের ভেতর তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ হবে। সেই সাথে নতুন করে কেউ স্মৃতি সৌধের আশে পাশের এলাকায় আশ্রয় নিতে পারবে না। নিরপত্তার জন্য এবার স্মৃতিসৌধ এবার স্মৃতিসৌধ এলাকার ৩২টি পয়েন্টে সিসিটিভি ক্যামেরা যুক্ত করা হয়েছে।

বাংলাদেশ গণপূর্ত বিভাগের ঢাকা জোন এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোসলেহ উদ্দিন বলেন, অনেক আগে থেকেই এ মহান বিজয় দিবস উদযাপনের জন্য জাতীয় স্মৃতিসৌধে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাতে কাজ করে যাচ্ছে আমাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আশাকরি আগামীকাল ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা জাতীয় স্মৃতিসৌধকে পুরোপুরি প্রস্তুত হবে। জণসাধারণে প্রবেশ ১৫ তারিখ পর্যন্ত পুরোপুরি নিষেধ। করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব কিছু করা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :