শিক্ষকদের পদোন্নতি ও অনলাইন ক্লাসের জন্য ডাটা প্রদানের দাবি বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি

কে.এম. ইয়ামিনুল হাসান আলিফ, পাবনা প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  05:42 PM, 24 November 2020

Share

দুই বছর ধরে আপগ্রেডেশন এবং রিজেন্ট বোর্ড না হওয়ায় গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১০০ জনেরও অধিক শিক্ষকদের আপগ্রেডেশন সর্বনিম্ন ৮ মাস থেকে সর্বোচ্চ প্রায় ৩ বছর যাবত আটকে থাকায় প্রায় ১৮০ জন শিক্ষক ভীষণভাবে আর্থিক, সামাজিক, মানসিক এবং পেশাগতভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন এ মর্মে সর্বোসম্মতিক্রমে এই ক্ষতি প্রশমনে প্রশাসন আগামি ২০ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে শিক্ষক আপগ্রেডেশন নীতিমালা সংশোধন করে প্রাপ্যতার তারিখ থেকে আর্থিক সুবিধাসহ এসকল শিক্ষকদের পদোন্নতি নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণের কথা জানায় বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি।

আজ সোমবার (২৩ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক লাউঞ্জ ও জুম মিটিং প্লাটফর্মে অনুষ্ঠিত শিক্ষক সমিতির ২য় সভায় এ দাবি জানান তারা৷
শিক্ষক সমিতির কার্যকরী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. রকিবুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় ও শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. হাসিবুর রহমান এর সভাপতিত্বে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত, পবিত্র গীতা পাঠ এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালনের মধ্যে দিয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাধারণ সভা শুরু হয়। এসময় অনলাইনে ও সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ের মো ১৬০ জন শিক্ষক অংশগ্রহণ করেন।

উক্ত সভায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সম্মানিত শিক্ষকদের পদোন্নতির জট নিরসন, আর্থিক ও পেশাগত ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষকদের ক্ষতি প্রশমনে করনীয় নির্ধারণ, শিক্ষকদের পারিতোষিক হার যুগোপযোগীকরণ, শিক্ষক ক্লাবের পরিচালনা বিষয়ক সিদ্ধান্ত গ্রহণ, শিক্ষকদের আবাসন এবং আমলাতান্ত্রিক নানান জটিলতাসহ বর্তমান শিক্ষক সমিতির মেয়াদ শেষে নতুন শিক্ষক সমিতি গঠনের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন গঠন সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা হয়।
এ সভায় অনলাইন ক্লাস আরো ফলপ্রসু করতে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মোবাইল ইন্টারনেট ডাটা ও আধুনিক সরঞ্জাম প্রদানের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে দাবি জানায় শিক্ষক সমিতি।

সর্বশেষ ইতিহাস এবং ইটিই বিভাগের চলমান সমস্যা দ্রুত নিরসন করার তাগিদ দেয়া ও শিক্ষক ক্লাব পরিচালনার জন্য এসিসিই বিভাগের সভাপতি ও সহকারী অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামানকে সভাপতি এবং একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. সোলাইমান হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করে একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। একই সাথে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়।যার প্রধান করা হয়েছে বিএমবি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মাহবুব হাসান’কে।

আপনার মতামত লিখুন :