নালিতাবাড়ীতে ২ মাস পর কবর থেকে যুবকের লাশ উত্তোলন।

মোঃ হাদিউল ইসলাম, শেরপুর প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:11 PM, 21 September 2020

Share

শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ীর রাজনগর ইউনিয়নের বুড়ুডুবি গ্রামে আজ এক যুবকের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে।

গত ১৬ জুলাই ২০২০ ইং মৃত: উসমান আলী তার বাড়ির পাশে গোয়াল ঘরে গরু দেখতে যায়। ঐদিন আনুমানিক রাত ৯ টার সময় মৃত ব্যক্তির বড় ভাই মনীর হোসেন গোয়াল ঘরের কাছে গেলে দেখতে পায় যে উসমান তার গোয়াল ঘরের সামনে পরে আছে।

তারপর চিৎকার চেচামেচিতে স্বজনরা তাকে শেরপুর সদর হাসপাতালের নিয়ে যায় হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক উসমানকে মৃত ঘোষনা করেন।

পরের দিন ১৭ জুলাই বেলা ১১ টার সময় উসমানের লাশ দাফন কাফন সম্পন্ন করা হয়। ঘটনার ১ মাস পর মৃত উসমানের ভাই আছিমুদ্দিন(৩৮) ধারানা করে যে তার ভাইকে খুন করা হয়েছে। পূর্বের জমি-জমা ও পারিবারিক শত্রুতা জের ধরে এমন ঘটনা ঘটেছে সন্দেহে মৃত্যের ভাই শেরপুর কোর্টে মামলা দায়ের করে।

আসামীরা হলেন মৃত্যের চাচাতো ভাই মো: মিষ্টার আলী(৩০), মৃত্যের চাচা রাকিব উরফে ডিপজল(২০), মৃত্যের আরেক চাচাতো ভাই সিদ্দিক মিয়া(৩৫),মৃত্যের দাদা সাইফুল(৪৫)।আদালতের আদেশে নালিতাবাড়ি থানায় মার্ডার মামলা রুজু হয়।

আজ (২১সেপ্টেম্বর) সোমবার মৃত্যের কবর খুরে লাশ উত্তলোন করেন মামলার তদন্তাকারী অফিসার, নালিতাবাড়ি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জনাব মোঃজুবায়ের হোসেন ।
তিনি বলেন, মামলাটির সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে লাশের ময়না তদন্ত করার জন্য বিজ্ঞ আদলতের আদেশ মোতাবেক একজন বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মৃতের লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছ। ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসলে বলা যাবে আসলে কি কারনে উসমানের মৃত্যু হয়েছিল।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মিজানুর রহমান বলেন, মৃত্যের ভাই আছিমুদ্দিন বাদী হয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করে। সেই প্রেক্ষিতেই আদালতের নির্দেশে আজকে মৃত উসমানের লাশ উত্তলোন কার হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসলে বলা যাবে এটা কি স্বাভাবিক মৃত্যু নাকি খুন।

এ সময় উপিস্থত ছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার (নালিতাবাড়ী সার্কেল) জনাব জাহাঙ্গীর আলম, এসআই আশিকুর রহমান, এসআই ওয়াহেদ আলী, এসআই ইমান আলী, এস আই শাহীন, এসআই ইউসুফ, এসআই আলমগীর ও উৎসুক স্থানীয় শতাধিক জনতা

আপনার মতামত লিখুন :