ক্ষমা না চাইলে সাবেক ভিপি নূরকে বয়কটের ঘোষণা।

বিশেষ প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:22 PM, 15 October 2020

Spread the love

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তরকে নিয়ে কটূক্তি ও সোশ্যাল মিডিয়ায় এক সাংবাদিকের মোবাইল নম্বর ছড়িয়ে হুমকি দেয়ার প্রতি’বাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ- ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরকে বয়কটের ডাক দিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা। এসময় তারা নুরকে তার অবস্থান থেকে সরে এসে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সচেতন সাংবাদিক সমাজের উদ্যোগে আয়োজিত একমানববন্ধনে এ আহ্বান জানান সাংবাদিকরা।

আয়োজনে বক্তারা বলেন, গণমাধ্যম যখন আপনার কোটা আন্দোলন, ভিপি নির্বাচন, নিগৃহীত হওয়ার খবরগুলো তুলে ধরেছে, তখন গণমাধ্যম ভালো। এখন যখন গণমাধ্যমে আপনার ধর্ষণের অভিযোগের খবরগুলো উঠে আসছে, তখন আপনি গণমাধ্যমকে বয়কট করতে চাচ্ছেন। এতে করে কী প্রমাণিত হয়? আপনি কি ছাত্রনেতা নাকি মৌলবাদী গোষ্ঠীর অংশ! হনুমানের লেজে আগুন দিলে যা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নুরুল ইসলাম নুরুকে ভিপি করে সে কাজটিই করেছে। দেশের ভাষা আন্দোলন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধসহ সমস্ত আন্দোলনে গণমাধ্যম অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। আর এখন একজন অপরাধী এসে হুট করে গণমাধ্যম বয়কট করতে চাইলে দেশের মানুষ তা মেনে নেবে, ব্যাপারটা তা নয়।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপিত ও সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সূর্য বলেন, ‘আমি আজকে এই মানববন্ধনে দাঁড়িয়েছি একজন গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে। যে গণমাধ্যম স্বাধীনতার স্বপক্ষে কাজ করে, দেশের সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করে সেই গণমাধ্যমকে নিয়ে কটূক্তি এই দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধেই কটূক্তি।’

মানববন্ধনে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ নাগরিক টিভির বার্তা প্রধান দ্বীপ আজাদ বলেন, এ নুর কে? তার পরিচয় কি? আমরা যখন ডাকসু নির্বাচন কাভার করেছি, তখন আমরা তার পক্ষে ছিলাম, যখন তিনি ছাত্রলীগের দ্বারা নিগৃ-হীত ছিলেন আমরা তার পাশে দাঁড়িয়েছে, তখন আমরা তার পক্ষে ছিলাম। আর যখন তিনি ধ-র্ষ-ণ মামলার আসামি সেটা প্রচার করতে গেলে গণমাধ্যম তার শত্রু।

‘গণমাধ্যম যখন দেশের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা, নারীর অধিকার, খেটে খাওয়া মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলে তখন তিনি কাদের প্রেতাত্মা সেটা স্পষ্ট হয়ে যায়। যিনি নারীদের বিরুদ্ধে কু’রুচি’পূর্ণ কথা বলেন তিনি কি করে ছাত্রনেতা হন। নুরুর নামে একাধিক মামলা থাকলেও তিনি এখনও কিভাবে খোলামেলাভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে, সেটাও প্রশ্নবিদ্ধ। অবিলম্বে নুর যদি গণমাধ্যমের কাছে, সংবাদকর্মীদের কাছে যদি নিঃশর্ত ক্ষমা না চান তবে গণমাধ্যম থেকে আমরা তাকে বয়কট করার আহবান জানাচ্ছি।গণমাধ্যমকেই এখন গণমাধ্যমের পাশে দাঁড়াতে হবে।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি এমএ কুদ্দুসের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম, সাবেক সভাপতি আবু জাফর সূর্য ও বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক সমিতির সভাপতি নাসিমা সোমা প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :