লেবাননের রাজধানী বৈরুত বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকুণ্ড।

মনির হোসেন রাসেল, আন্তর্জাতিক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  05:56 PM, 11 September 2020

Spread the love

লেবাননের রাজধানী বৈরুতের প্রাণকেন্দ্র “বৈরুত বন্দর” গত ৪ আগস্ট ২০২০, স্থানীয় সময় বিকেল ৬টার দিকে দুটি শক্তিশালী বিস্ফারণ হয় এই বন্দরটিতে। যার ফলে তছনছ হয়ে যায় বন্দর সহ আশপাশের ১০ কিলোমিটার এলাকা।

এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের ৩৭ তম দিনের মাথায় লেবাননের বৈরুত বন্দরে, আবারো বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর)। বৈরুতের বন্দরে একটি গুদামে মজুত রাখা তেল এবং টায়ারের একটি গুদামে এই আগুন লাগার ঘটনা ঘটে বলে প্রথমিক ভাবে নিশ্চিত করেছে লেবাননের সেনাবাহিনী।

লেবাননের স্থানীয় সময় দুপুর একটার দিকে বন্দরের শুল্কমুক্ত অঞ্চলে আগুনের সূত্রপাত হয়। আগুনের কারণ তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। তবে ধারণা করা হচ্ছে গুদামে রাখা ভোজ্য তেল থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে। এ সময় সমগ্র বৈরুত শহরে আকাশে বিশাল কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলি দেখা যায়। সামাজিক মাধ্যম ও বিভিন্ন টেলিভিশনে প্রচারিত ফুটেজে দেখা যায়, বন্দরে অগ্নিনির্বাপণ কর্মীরা আগুন নেভানোর চেষ্টা করছেন।

দমকল বাহীনির একাদিক ইউনিট সহ আরো বিভিন্ন বাহিনীর প্রায় ৫ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে বিকেলে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে “মেরিটাইম টাস্কফোর্সের” অধীনে লেবাননে নিয়োজিত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ “বিএনএস সংগ্রামের” সদস্যরা আগুন নেভাতে বৈরুত ফায়ার সার্ভিসকে সর্বাত্মক সহায়তা করে।

এর আগে গত ৪ আগস্ট বৈরুতের বন্দরের একটি রাসায়নিক গুদামে ভয়াবহ দুটি শক্তিশালী বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সমগ্র বৈরুতকে ছিন্নভিন্ন করে দেয়া সেই বিস্ফোরণের ক্ষতও এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন বৈরুতবাসী। বিধ্বংসী সেই বিস্ফোরণে অন্তত ২০০ জনেররও বেশি মানুষ প্রাণ হারায় এবং আরো প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়। গৃহহীন হয় ৩ লাখেরও বেশি মানুষ। কম্পমান হয় ৩৫ কিলোমিটার এলাকা। ছিন্নভিন্ন হয়ে পুরো বৈরুত, ভয়ংকর ক্ষয়ক্ষতি হয় দশ কিলোমিটার এলাকা।

বিস্ফোরণের ধাক্কায় টালমাটাল বৈরুতে নতুন করে সবকিছু শুরু করার চেষ্টা চলছে। এর মাঝে বৃহস্পতিবারের এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার বৈরুত বন্দরের একটি তেল ও টায়ারের গুদামে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ছড়িয়ে পড়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :