লেবাননের রাজধানী বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণে আড়ো এক বাংলাদেশির মৃত্যু।

মনির হোসেন রাসেল, আন্তর্জাতিক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:50 AM, 26 August 2020

Spread the love

লেবাননের রাজধানী বৈরুত প্রাণকেন্দ্র “বৈরুত বন্দরের” গুদামে ভয়াবহ কেমিক্যাল বিস্ফোরণে আরও এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। তার নাম মো. জামাল। ভয়াবহ এ বিস্ফোরণে বাংলাদেশির মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাড়ালো ছয় জনে।

স্থানীয় মাউন্ট লেবানন হাসপাতালেটানা ২১ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) সকালে না ফেরার দেশে চলে গেলেন এই যুবক। বর্তমানে মরদেহ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

বিস্ফোরণের সময় জামাল বৈরুত বন্দর সংলগ্ন ঝিমাইজি এলাকায় একটি পিজা সপে কাজ করছিলেন। বিস্ফোরণে পিজা সপটি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হলে জামাল মারাত্মকভাবে জখম হয়। পরে তাকে মাউন্ট লেবানন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এতদিন সেখানেই চিকিৎসাধীনী ছিলেন তিনি।

নিহত জামালের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলার নবীনগর থানার বিদ্যাকুট গ্রামে। তার বাবার নাম “দুধ মিয়া। নিহত জামাল মিয়া ২০১৮ সালে কোম্পানি ভিসায় লেবানন আসেন।

গত ৪ আগস্ট আনুমানিক বিকেল ৬ টার দিকে লেবাননের রাজধানী বৈরুতের বৈরুত বন্দরে দুটি শক্তিশালী বিস্ফোরণ ঘটে। এতে বৈরুত বন্দর সহ বৈরুত শহর এবং এর আশে পাশে দশ কিলোমিটার পরিসীমায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতে পরিনত হয়।

বিস্ফোরণে প্রায় ১৭০ জনের বেশি লোক নিহত হয়। আহত হয় ৬ হাজারের অধিক মানুষ। আর এ ঘটনায় গৃহহারা হয় প্রায় তিন লক্ষাধিক স্থানীয় নাগরিক

এরমধ্যে মেহেদি হাসান রনি ও মিজান খাঁন নামে দুই বাংলাদেশির মরদেহ বাংলাদশ দূতাবাসের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে বাংলাদেশে পাঠানো হয়। বাকি ৪ জনের মরদেহ যাবতীয় কার্যাবলী সম্পন্ন শেষে খুব শীঘ্রই বাংলাদেশে পরিবারের নিকট পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্র।

লেবাননের জলসীমায় বাংলাদেশ নৌবাহনীর ইউনিফিলের অধীনে পাহারারত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ, বিএনএস বিজয় এই বিস্ফোরণে আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং উক্ত জাহাজের ২১ জন সদস্য আহত হয়। এছাড়া এ পর্যন্ত উক্ত বিস্ফোরণে ৬ বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয় এবং আহত হয় প্রায় দেড়শতাদিক।

আপনার মতামত লিখুন :