লেবানন সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হলেন প্রবাসী বাংলাদেশি।

মনির হোসেন রাসেল, আন্তর্জাতিক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  01:33 AM, 18 July 2020

Spread the love

লেবাননে সড়ক দূর্ঘটনায় “মোঃ আল-আমিন” নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু হয়েছে। “জাবেল লেবনান” নামে একটি স্থানীয় হাসপাতালে ৪ দিন মৃত্যু শয্যায় থেকে গত বৃহষ্পতিবার(১৬ জুলাই) রাতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। বর্তমানে তাঁর মরদেহ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা আছে।

লেবাননস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে নাম নিবন্ধন করেও দেশে যেতে পারলেন না মোঃ আল-আমিন। এর আগেই মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় তাঁর অকাল মৃত্যু হয়।
মোঃ আলামিনের চাচাত ভাই লেবানন প্রবাসী মোঃ মেহেদী জানায়, কাগজপত্র বিহীন প্রবাসী মোঃ আলামিন বাংলাদেশ দূতাবাসে নাম নিবন্ধনসহ নির্ধারিত অর্থ পরিশোধ করে নিজদেশে ফেরত যাবর জন্য অপেক্ষায় ছিলেন। তাঁর সিরিয়াল নম্বর হল (৪৯৮৭)। বাংলাদেশে মোঃ আল-আমিনের স্ত্রী ও এক সন্তান রয়েছে।

মোঃ আল-আমিন ছিলেন তাঁর পরিবারে একমাত্র উপার্জনকারী। কুমিল্লা জেলার বি-পাড়া উপজেলার উত্তর চান্দলা গ্রামের গরীব কৃষক “আবদু মিয়া” ছেলে মোঃ আল-আমিন। পরিবারের স্ত্রী সন্তান, পাঁচ বোন ও মা-বাবা সহ ১০ সদস্য তাঁর।

গরীব কৃষক আবদু মিয়া ৬ সন্তানের জনক।একমাত্র ছেলে মোঃ আল-আমিন সহ তাঁর আরো পাঁচ কন্যা সন্তান রয়েছে পরিবারে। অভাবের সংসারে একমাত্র আবদু মিয়া ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি। পাঁচ বোনের খুব আদরের ছিল একমাত্র ভাই মোঃ আল-আমিন।

আবদু মিয়া পরিবারে একটু স্বচ্ছলতা আনার আশায় বিভিন্ন জনের নিকট থেকে ধারদেনা করে প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচ করে একমাত্র ছেলে মোঃ আল-আমিন কে একটি কোম্পানীর ভিসায় ২০১৭ সালে লেবাননে পাঠায়। মোঃ আল-আমিন লেবাননে আসার পর দালালের প্রতারনায় অবৈধ হয়ে যায়। অনেক দিন বেকার ছিলেন। পরে অন্য একটি ক্লিনিং কোম্পানীতে কাজ শুরু করে।

জানা যায়, গত রবিবার(১২ জুলাই)বৈরুতের “সুক আল-আহাদ” এলাকার একটি বিল্ডিংয়ে প্রতিদিনের মত কাজে যায় মোঃ আল-আমিন। সকালে আবর্জনা ফেলতে রাস্তা অতিক্রম করার সময় একটি দ্রুত গতির প্রাইভেটকার পিছন থেকে ধাক্কা দিলে সে মাথায় প্রচন্ড আঘাতপ্রাপ্ত হয়। পরে এম্বুল্যান্স এসে তাঁকে জাবেল লেবনান হাসপাতালে নিয়ে যায়।

সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানায় যে তাঁর অবস্থা আশংকাজনক। পরে চিকিৎসক তাঁকে নিবিড় পর্যবেক্ষন রুমে রেখে চিকিৎসা প্রদান করলেও তাঁর শাররিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে।অবশেষে চার চিকিৎসাধীন অবস্থায় থেকে গতকাল বৃহষ্পতিবার(১৬ জুলাই) রাতে তাঁর মৃত্যু হয়।

এদিকে মোঃ আল-আমিনের মৃত্যুতে পরিবার স্বজন সহ তাঁর গ্রামে শোকের ছায়া নেমে আসে। মরদেহ দ্রুত দেশে পাঠাতে তাঁর পরিবার দূতাবাসের সাহায্য কামনা করেছেন। মৃত্যুকালে মোঃ আলামিন এক সন্তানের জনক ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :